মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ডিডিটাল সেন্টারের অর্জন

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্রস্বাধীনতার ৩৯ বছর পরও যখন বাংলাদেশের সাধারণ জনগন স্বাধীন দেশের মৌলিক সুবিধাগুলো পাওয়ার জন্য বিভিন্ন অফিসে ধর্না দিয়ে বেড়াতো, সেখানে বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর digital বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে কাজ শুরু করেন। সরকারের এ ভিশন বাস্তবায়নের জন্য সর্বপ্রথম দেশের ৬৪টি জেলায় জেলার সকল তথ্য নিয়ে ৬৪টি ওয়েব পোর্টাল (জেলা ওয়েব পোর্টাল নামে পরিচিত) তৈরী করা হয়। ওয়েব পোর্টাল তৈরীর পর সাধারণ জনগণ তাদের প্রয়োজনীয় তথ্য সংশ্লিষ্ট অফিসে না গিয়ে নিজের বাড়ীর পাশের বাজারে কোন সাইবার ক্যাফেতে বসে সহজে তথ্য পেয়ে যায়। কিন্তু সকল মানুষ ওয়েব পোর্টাল সম্পর্কে ধারণা না থাকায় এ সুবিধা থেকে অনেক লোক বঞ্জিত হচ্ছিল। তাদের সচেতন করার জন্য এবং ঘরে বসে তথ্য পাওয়ার জন্য জেলা পর্যায়ের পরবর্তীতে প্রতিটি ইউনিয়নে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। ১১নভেম্বর, ২০১০ সালে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সকল ইউনিয়নে একযোগে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র (UISC) উদ্বোধন করেন। ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্রগুলো উদ্বোধনের পর ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন হয়।বাংলাদেশের চুড়ান্ত স্বপ্ন হচ্ছে 'Digital Bangladesh' গড়া। বর্তমানে এটি দেশের জাতীয় উন্নয়নের জন্য অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। UISC SERIVCE বাস্তবায়নের মাধ্যমে এই স্বপ্ন বাস্তবে রুপ দেয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। UISC গুলোর মাধ্যমে স্থানীয় জনসাধারণ প্রায় সকল রকম সেবা পেয়ে থাকে তথ্য সেবা কেন্দ্র জন্ম হতে মৃত্যু পর্যন্ত সকল মানুষের  সেবা পাবার এক নির্ভেজাল ভালবাসার স্থান। উদ্যোক্তা জীবনে সাধারণ মানুষের ভালবাসার এরকম স্বীকৃতি আমার মতো কয়জন তরুনের ভাগ্যে জোটে আমি জানিনা। তবে এ ধরণের স্বার্থক একটি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা হতে পেরে সত্যিই আজ আমি সাধারণ জনগনের ভালবাসায় সফল।  জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দেবার লক্ষ্যে সরকার মাঠ পর্যায়ে digital সেবা তথা জনগণের দোরগোড়ায় সেবা প্রদানের উদ্যোগ শুরু করেছে বিগত ১১ ই জুলাই, ২০১০খ্রি. তারিখে। মাঠ পর্যায়ে ইউনিয়ন লেভেলে যাদের মাধ্যমে এই ডিজিটাল সেবা প্রদান করা হয় তারা হচ্ছে  ইউআইএসসি উদ্যোক্তাগন। যে কোন পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ থেকে শুরু করে বিদেশে কর্মী প্রেরণের জন্য রেজিস্ট্রেন কার্যক্রম অধ্যাবধি দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছি। আমরা আশা রাখি আগামিতে আমাদের সেবার ধরন/মান/ব্যাপক প্রচার অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে। যার ফলে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর ভিশন ২০২১ এর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে।

ছবি



Share with :

Facebook Twitter